Share To Facebook

Share To Twitter

Share To Linkedin

Share To Whatsapp

Card image cap

করোনায় ভিটামিন D এর কার্যকারিতা

২০২০ সালের পৃথিবীতে আজ সবচেয়ে বড় আতঙ্ক করোনা ভাইরাস ডিজিজ COVID-19। অথচ করোনায় ৮০% ব্যাক্তিই থাকে উপসর্গহীন,অথবা দেখা যায় মৃদু উপসর্গ(Mild Symptoms)।অপরদিকে ৫-১০% রোগীকে লড়তে হয় মৃত্যুর সাথে,দরকার হয় আইসিইউ সাপোর্ট।

এই যে রোগীভেদে করোনার ভয়াবহতার পার্থক্য কিভাবে হচ্ছে ভেবেছেন কি?

সম্প্রতি করোনায় মৃত্যুহার এর সাথে ভিটামিন ডি এর সম্পর্ক পেয়েছে বিজ্ঞানীরা এমন খবর দিয়েছে এনডিটিভি।

যুক্তরাজ্যের একদল বিজ্ঞানী জানিয়েছেন, ইউরোপের ২০ টি দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেশি ও মৃত্যু হারের সঙ্গে স্বাভাবিকের তুলনায় ভিটামিন ডি কম থাকার সম্পর্ক পেয়েছেন। তাদের গবেষণা প্রতিবেদনটি অ্যাজিং ক্লিনিক্যাল অ্যান্ড এক্সপেরিমেন্টাল রিসার্চ জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এখবর জানিয়েছে। European Calcified Tissue Society ভিটামিন D এর সর্বনিম্ন মাত্রা ঠিক করেছিল 30nmol/L. অথচ স্পেন ও ইতালির অধিকাংশ মানুষে পাওয়া ভিটামিন D এর লেভেল ছিল যথাক্রমে 26nmol/L ও 28nmol/L.আরো উদ্বেগজনক হলো ইতালিতে ৭০ বছরোর্ধ ৭৬% নারীর দেহে ভিটামিন D এর লেভেল 30nmol/L এর কম ছিল।

গবেষণা প্রতিবেদন অনুসারে, সবচেয়ে বেশি গড়ে ভিটামিন-ডি রয়েছে উত্তর ইউরোপের (ডেনমার্ক, এস্তোনিয়া, ফিনল্যান্ড, আইসল্যান্ড, লাটভিয়া, লিথুয়ানিয়া, নরওয়ে ও সুইডেন) দেশগুলোতে। কড লিভার তেল ও ভিটামিন ডি সম্পূরক খাবার এবং দক্ষিণ ইউরোপের তুলনায় সূর্যকে কম এড়িয়ে চলার কারণে এসব দেশে ভিটামিন ডি এর মাত্রা বেশি।ক্যামব্রিজশায়ার ও এসেক্সভিত্তিক আঙ্গিলা রাসকিন ইউনিভার্সিটির ফিজিক্যাল অ্যাক্টিভিটি ও পাবলিক হেলথ বিষয়ক ড. লি স্মিথ ও কুইন এলিজাবেথ হাসপাতালের প্রধান ইউরোলজিস্ট কিংস লিন এবং আঙ্গিলা রাসকিন বিশ্ববিদ্যালয়ের পিটার ক্রিস্টিয়ান ইলির সমন্বয়ে তৈরী গবেষক দল শ্বাসনালী সংক্রমণের বিরুদ্ধে ভিটামিন ডি-এর কার্যকারিতা পেয়েছেন।

করোনায় ভিটামিন D এর আসলেই কার্যকারিতা কি? ২৫ শে ফেব্রুয়ারী ২০১৭ ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশ পায় শ্বাসনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে Respiratory Infection Prevention) ভিটামিন D এর ভূমিকা। ১০,৯৩৩ জনের উপর করা স্টাডিতে দেখা যায় ভিটামিন D এর অভাব থাকলে ভাইরাস দ্বারা ইনফেশনের হার ৫০% বেড়ে যায়। আমরা জানি করোনা ভাইরাস ইনভেলাপড ভাইরাস। মানব দেহের প্রথম স্তরের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় ( First line innate diffence) এন্টিমাইক্রোবায়াল পেপটাইড এই ইনভেলাপ (Disrupt)ছিঁড়ে ফেলে। এতেও ভিটামিন D এর ভূমিকা রয়েছে। ভাইরাস প্রতিরোধে ভিটামিন D এর ইমিউনো রেগুলেটরি ভূমিকাও আছে। করোনা ভাইরাস শরীরে ঢুকে নির্দিষ্ট রিসেপ্টরে গিয়ে ট্রান্সক্রিপশন শুরু করে। এ প্রক্রিয়াতেও বাঁধা(Suppress) দেয় ভিটামিন D. এছাড়া ভিটামিন D এর প্রভাবেই করোনা ভাইরাসের নির্দিষ্ট ACE 2 রিসেপ্টর কম তৈরী হয়। করোনা ভাইরাস থেকে সুস্থ হওয়া রোগীদের অধিক শারীরিক অবসাদের পেছনে থাকে সাইটোকাইন স্টোর্ম বা অধিক ইনফ্ল্যামাটরি রেসপন্স। এই অবস্থাকেও স্বাভাবিক রাখতে কাজ করে ভিটামিন D. রোগ প্রতিরোধে বিভিন্ন সেলুলার ও ভাইরাল ফ্যাক্টরের সাথে কাজ করে ভিটামিন D. অটোফ্যাজি( Autophagy) ও এপোপ্টোসিস( Apoptosis) প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করে ভাইরাস ইনফেক্টেড টারগেটেড সেলের মৃত্যুতেও কাজ করে ভিটামিন D.

ভিটামিন D এর ঘাটতি পূরণের উপায়:

ভিটামিন D এর সবচেয়ে ভালো উৎস সূর্যের আলো। সকাল দশটা থেকে বিকেল চারটার প্রখর রোদে (১০-৪৫ মিনিট) ভিটামিন D এর চাহিদা পূরণ হয় অনেকাংশে। এছাড়া দুগ্ধ জাতীয় খাবার, ডিমের কুসুম, সামুদ্রিক মাছ, যকৃত, মাশরুম থেকে এক তৃতীয়াংশ চাহিদা মেটানো সম্ভব। লকডাউনে সূর্যের আলো পোহানো সম্ভব না হলে ৪০,০০০ ইউনিটের ভিটামিন D ক্যাপসুল সপ্তাহে ১ দিন করে ৭ সপ্তাহ সাপ্লিমেন্টারি হিসেবে নেওয়া যেতে পারে।

গোটা বিশ্ব আজ করোনার প্রতিষেধক আবিষ্কারের জন্য লড়ে যাচ্ছে। অথচ কত সহজলভ্য এক ভিটামিন D শরীরের অভ্যন্তরে করোনার সাথে ছোটখাটো লড়াই করে যাচ্ছে। এই সময়ে একটু সচেতনতাই পারে জীবন মৃত্যুর পার্থক্য করে দিতে। তাই এখনই সময় সচেতন হোন, নিজেই প্রতিরোধ করুন এই ভয়াল ভাইরাসকে।

Written by-

সাবরিনা মনসুর

ঢাকা মেডিকেল কলেজ

ব্যাচ- K-75 সেশন: ২০১৭-১৮

Created: May 29, 2020 Last updated May 29, 2020