Share To Facebook

Share To Twitter

Share To Linkedin

Share To Whatsapp

Card image cap

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর এবারের উদ্যোগ ‘প্লাজমা ব্যাংক’

করোনা শনাক্ত হওয়া পর থেকে নিজ বাসায় আইসোলেশনে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এর মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে শারীরিকভাবে বেশ দুর্বলতা অনুভব করায় গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে গিয়ে এক ব্যাগ রক্ত নেন। নিয়মিত কিডনি চিকিৎসার অংশ হিসেবে ডায়ালাইসিসও করান। নিয়েছেন প্লাজমা থেরাপিও। প্লাজমা থেরাপি নেওয়ার পর এর কার্যকারিতা দেখে ভাবেন, দেশের সব মানুষেরই প্লাজমা থেরাপি সুবিধা পাওয়া দরকার। তাই ‘প্লাজমা ব্যাংক’ প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নেন।

আজ শুক্রবার সকালে দ্য ডেইলি স্টারকে এসব কথা জানিয়েছেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘করোনা চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপি ম্যাজিকের মতো কাজ করে। নিজে এটা নিয়ে তা বুঝতে পারছি। গতকাল শারীরিকভাবে বেশ দুর্বলতা অনুভব করছিলাম। গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে এসে এক ব্যাগ রক্ত নিতে হয়েছে। নিয়মিত কিডনি চিকিৎসার অংশ হিসেবে ডায়ালাইসিস করতে হয়েছে। কিন্তু, প্লাজমা থেরাপি নেওয়ার পর চাঙ্গা হয়ে উঠেছি। প্লাজমা থেরাপি সব করোনা রোগীর পাওয়া দরকার। শুধু আমরা কয়েকজন সুবিধা পাবো, আর দেশের অন্যরা বঞ্চিত থাকবে, তা হতে পারে না।’

গতকাল বিকালে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে গিয়ে রক্ত নিয়ে, কিডনি ডায়ালাইসিস করে ও থেরাপি নিতে নিতে রাত ২টা বেজে যায়। সে কারণে রাতে আর বাসায় ফেরেননি তিনি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালেই ছিলেন। আজ সকালে যখন তার সঙ্গে কথা হয়, তখন তিনি বলছিলেন, হাসপাতালের কিছু অফিসিয়াল কাজ আছে, সেগুলো করে প্লাজমা ব্যাংক প্রতিষ্ঠার জন্য কী করতে হবে, সেই বিষয়ে কিছু কাজ করে আবার বাসায় ফিরে আইসোলেশনে থাকবেন তিনি।

‘কেউ করোনা শনাক্ত হলে বা সাধারণ রোগে যারা অসুস্থ হচ্ছেন, তারাই তো ঠিকমতো চিকিৎসক পাচ্ছেন না। সেক্ষেত্রে “দেশের সব মানুষ প্লাজমা থেরাপি পাবে” এই ভাবনাটা এখনকার পরিস্থিতিতে কতটুকু বাস্তবিক?’ এমনটি জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, ‘এটা খুবই সম্ভব। সব মানুষকে এই সুবিধা দেওয়া আকাশকুসুম কল্পনা না। এটা বাস্তব। আমার করোনা শনাক্ত হওয়ার পর প্রফেসর ডা. মহিউদ্দিন খান ফোন করে প্লাজমা থেরাপি নেওয়া পরামর্শ দেন। এরপর আমি প্লাজমা থেরাপি নেই। প্রথমবার প্লাজমা থেরাপি নিয়েই বুঝতে পারি, করোনা রোগের জন্য এটা অত্যন্ত কার্যকর। এখন প্লাজমা ডোনেট করার জন্য দেশের মানুষকে বোঝাতে হবে। যদি সবাই মিলে উদ্যোগ নেওয়া, বোঝানো হয়, তাহলে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে গেছেন ও শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়ে গেছে, তারা খুব সহজে ডোনেট করতে পারবে। আমাদেরকে এটাই এখন মানুষকে বোঝাতে হবে।’

‘এটার জন্য কিছু সরঞ্জামও লাগবে। আমরা এখন উদ্যোগ নিচ্ছি। প্রফেসর ডা. মহিউদ্দিন খান ঢাকা মেডিকেলে কাজ করছেন। শিশু হাসপাতালে কাজ করছেন ডা. হারুন। এটা অত্যন্ত মহৎ কাজ। তারা অত্যন্ত মহৎ কাজ করছেন। তাদের সেই কাজের অংশ হিসেবেই আমরা খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে একটি “প্লাজমা ব্যাংক” গড়ে তোলার উদ্যোগ নিতে যাচ্ছি।’

‘এর জন্য কিছু সরঞ্জাম বিদেশ থেকে আমদানি করতে হবে। কিছু অর্থও লাগবে। অর্থের ক্ষেত্রে প্রয়োজনে গণস্বাস্থ্যের সম্পদের বিপরীতে ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে নেবো। প্রয়োজনীয় সরঞ্জামগুলো যদি উড়োজাহাজে করে আনি, তাহলে দুই সপ্তাহের বেশি সময় লাগবে না। সবকিছু মিলিয়ে দুই সপ্তাহের মধ্যেই আমরা সরঞ্জাম এনে স্থাপন করে ফেলতে পারবো।’

‘দেশে প্লাজমা ডোনেট করার মতো প্রচুর মানুষ আছে। সবকিছু মিলিয়ে কাজটা অত কঠিন কিছু নয়। আমাদের যে সামর্থ্য-সক্ষমতা, তা দিয়েই দ্রুত এটা করে ফেলতে পারবো। এতে দেশের মানুষ খুব উপকৃত হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এর জন্য এখন আমাদের প্রধান কাজ হচ্ছে— “কাদের করোনা হয়েছে, কারা এখন করোনায় আক্রান্ত, কারা সুস্থ হয়ে গেছেন, কারা আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে গেছেন, কিন্তু হয়তো নিজেও বোঝেননি, তার শরীরেও অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে” এই মানুষগুলোকে খুঁজে বের করা।’

‘কীভাবে তাদের খুঁজে বের করা যাবে?’ জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, ‘তাদের বের করতে হলে পরীক্ষা করতে হবে। এই ক্ষেত্রে পরীক্ষার কোনো বিকল্প নেই। এখানেই আবারো আসে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিটের প্রসঙ্গ। যে কিট আমাদের হাতে আছে, তা দিয়ে আমরা মাত্র তিন থেকে পাঁচ মিনিটে সঠিকভাবে একজন করোনা রোগীকে শনাক্ত করতে পারি। আমাদের কিট যে সঠিক ফল দেয়, আমাদের কিটের সাফল্য যে প্রায় শতভাগ, সেই কথা আমরা পূর্বে বারবার বলেছি। এখন আবারও বলছি। আমি নিজে করোনা শনাক্ত হওয়ার পরে আমাদের অ্যান্টিজেন কিট সঠিক ফল দিয়েছে। আমাদের অ্যান্টিবডি কিট সঠিক ফল দিয়েছে। আমার নমুনা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) সংগ্রহ করে তারা যে পরীক্ষা করেছে, সেখানেও একই ফলাফল এসেছে।’

‘শুধু এই একটি ঘটনা দিয়েও প্রমাণ হয় যে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ড.বিজন কুমার শীলের উদ্ভাবিত কিট কতটা মানসম্পন্ন ও নির্ভরযোগ্য। আমাদের বিজ্ঞানী ড. বিজন কুমার শীলরা, আমরা এতদিন ধরে যে সাফল্যের কথা বলছিলাম, আমাদের “জি র‍্যাপিড ডট ব্লট” কিটের সাফল্য তার চেয়ে বেশি ছাড়া কম নয়।’

তিনি বলেন, ‘প্লাজমা ব্যাংক প্রতিষ্ঠার জন্য, যেসব সাধারণ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হবেন, তাদের দোরগোড়ায় “প্লাজমা থেরাপি” সুবিধা পৌঁছে দেওয়ার জন্য, আমাদের কিট অতি দ্রুত অনুমোদন দেওয়া দরকার বলে আমি মনে করি। পরীক্ষা-নিরীক্ষা, তর্ক-বিতর্ক বহু হয়েছে। বিএসএমএমইউতে কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষা চলমান। তারা আরও পরীক্ষা করুক, তাতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। তারা আমাদেরকে পরামর্শ দিবে, সেই পরামর্শও আমরা পালন করার চেষ্টা করবো। এখন পর্যন্ত যে পরীক্ষা তারা সম্পন্ন করেছে, তার ভিত্তিতেই এটির অনুমোদন দেওয়া দাবি জানাচ্ছি, অনুরোধ করছি। দেশ ও জনমানুষের স্বার্থে আমাদের কিট উৎপাদন ও ব্যবহারের অনুমতি দিন।’

‘আমরা এই কিট দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য করবো না কিংবা অর্থ আয় করবো না। আমরা এই কিট দিয়ে দেশের মানুষের সেবা করব। বেশি পরিমাণে উৎপাদনে যেতে পারলে, বিদেশে রপ্তানি করার সুযোগ পেলে, আমাদের এই কিটের মূল্য আরও অনেক কমে যাবে। সুতরাং দেশ ও জাতির স্বার্থে আমরা এখন যত দ্রুত সম্ভব এই কিটের অনুমোদন চাই’, যোগ করেন ডা. জাফরুল্লাহ।

উল্লেখ্য, কিট উদ্ভাবনের ঘোষণার পর ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ‘গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতাল-২’ নামে বিশেষ করোনা হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছিলেন আকিজ গ্রুপের আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতায়। তেজগাঁওয়ে নিজেদের জায়গায় হাসপাতাল উপযোগী ভবনও তৈরি করে দিয়েছিল আকিজ গ্রুপ। বেশকিছু মেডিকেল সরঞ্জাম কেনা হয়েছিল। কিন্তু, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা লোকজন নিয়ে করোনা হাসপাতাল বিরোধী সমাবেশ-মিছিল করে। হাসপাতাল ভাঙচুর করা হয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আশ্বাস দেওয়া হলেও হাসপাতালের কাজ আর এগোয়নি। পিছিয়ে গেছে আকিজ গ্রুপ।

কিট অনুমোদনের দৌড়াদৌড়ির মধ্যেই ডা. জাফরুল্লাহ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এখনো ভাবছেন সেই জনমানুষের কথা, গড়ে তুলতে চাইছেন ‘প্লাজমা ব্যাংক’।

Created: May 29, 2020 Last updated May 29, 2020